মেডিকেল ও পুলিশ ক্লিয়ারেন্স যেভাবে পাবেন | How to get a Medical and Police Clearance Certificate

কিভাবে মেডিকেল সার্টিফিকেট নিবেন?

উত্তরঃ মেডিকেল সার্টিফিকেট নেয়ার জন্য আপনাকে আপনার যে জেলা থেকে পাসপোর্ট করেছেন সেই জেলার যেকোন সরকারি এমবিবিএস ডাক্তার  অথবা আপনার জেলার সদর হাসপাতাল থেকে নিতে হবে। জেলা সদর হাসপাতাল এই সিভিল সার্জন থাকে। মূলত জেলা ভেদে টাকার পরিমাণ কম বেশি হয়। ২-৩ হাজার থেকে শুরু করে অনেক জেলায় ৭-৮ হাজার টাকাও হতে পারে। তাই আগে জেলা সিভিল সার্জন ও ডাক্তারের সাথে কথা বলে নিবেন।

প্রশ্নঃ কিভাবে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট নিবেন?

উত্তরঃ আমরা জানি, আমরা যারা সৌদি মিনিস্ট্রি তে আবেদন করব তাদের জন্য পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট ও তার আরবি অনুবাদ বাধ্যতামূলক। আগেই বলে রাখি পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট হচ্ছে আপনার নাম এ কোন ক্রিমিনাল রেকর্ড নেই সেই মর্মে একটি সার্টীফিকেট প্রদান করা হয় যেটিকে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট বলে। বিদেশে যাওয়ার জন্য বা চাকুরীর জন্য এই সনদ কাজে লাগে।

পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট নেয়ার প্রসেস সবার ক্ষেত্রেই এক। প্রথমে আপনাকে https://pcc.police.gov.bd/ords/f?p=500:1:::::: এই ওয়েবসাইটে গিয়ে একটি একাউন্ট খুলতে হবে। একাউন্ট খোলার পর সেই একাউন্ট থেকে আপনাকে আবেদন করতে হবে। আবেদন করার প্রসেস টা একদম সোজা। আপনি বিদেশে যেতে চাইলে পাসপোর্ট অনুসারে আপনার আবেদন করবেন। মনে রাখবেন কোন ভুল যাতে না হয়। কারন সামান্য একটু ভুল আপনার আবেদন বাতিল হবে। তাই সুন্দর ভাবে আবেদন করে অনলাইনে এ চালানের মাধ্যমে আপনি ৫০০ টাকা পেমেন্ট করবেন। অনলাইনে বিকাশ/রকেট/নগদ এর মধ্যমে পেমেন্ট করা যাবে। তারপর সেই পেমেন্ট স্লিপ আপলোড করতে হবে অনলাইনেই পেয়ে যাবেন সেই পেমেন্ট স্লিপ। এরপর ফাইনাল সাবমিট করলে কাজ হয়ে যাবে।
-পুলিশ ক্লিয়ারেন্স আবেদন করতে যা যা লাগবে,

  • পাসপোর্ট (সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ)
  • ন্যাশনাল আইডি কার্ড
  • জন্ম সনদ অনলাইন
  • স্থায়ী ঠিকানার চেয়ারম্যান সার্টিফিকেট

আগেই বলে রাখি এই সকল ডকুমেন্টস স্ক্যান/ফটোকপি করে সেই স্ক্যান কপি আপনাকে যেকোন একজন এ গ্রেড বিসিএস কর্মকর্তা দ্বারা সত্যায়ন করে নিতে হবে। যেকোন সরকারি মেডিকেল অফিসার/ সরকারি কলেজের স্যার থেকে সত্যায়িত করে নিলেই হবে। আর সেই পেপার দিয়েই আবেদন করতে হবে।

কারও যদি, আইডি কার্ড না থাকে তাহলে জন্ম সনদ হলেও চলবে তবে পাসপোর্ট বাধ্যতামূলক। আর কারও আবেদন যদি রিজেক্ট হয় তবে সেই চালান কপি দিয়ে পুনরায় আবেদন করতে পারবেন। চেষ্টা করবেন ক্লিয়ার ছবি আপলোড দেয়ার নয়তো আবেদন বাতিল হবার সম্ভাবনা থাকে। আর হ্যাঁ, পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সত্যায়ন করা লাগবেনা কারন এটি ফরেইন মিনিস্ট্রি থেকে সত্যায়ন হয়েই আসবে। এটি আসতে ঢাকার মধ্যে আনুমানিক ৭ দিন ও ঢাকার বাহিতে ১৫ দিন লাগে।

আর হ্যাঁ, আপনি চাইলে একাউন্ট না খুলে অন্যকারো একাউন্ট দিয়েও আবেদন করতে পারবেন। এতে আবেদনের উপর কোন প্রভাব পড়বেনা বা কিছু হবেনা। একটি একাউন্ট থেকে অনেকগুলো আবেদন করা যায়।
আবেদন এর পর আপনার পুলিশ ভেরিফিকেশন হবে। আপনার তদন্ত কে করবেন সেই থানার এসআই এর নাম ও নাম্বার আপনার ফোনে ম্যাসেজে চলে যাবে। আপনি তাকে ফোন করে সেই সত্যায়িত ডকুমেন্টস তাকে জমা দিবেন। যদি প্রশ্ন কড়ে সেগুলোর সঠিক উত্তর দিবেন। এরপর আপনার পুলিশ ভেরিফিকেশন হয়ে যাবে।

বলে রাখি পুলিশ ক্লিয়ারেন্স এর ধাপ হলো ১০ টা। আপনি যেই একাউন্ট থেকে আবেদন করেছেন সেই একাউন্টে লগিন করে আপনার আবেদনের অবস্থা দেখতে পারবেন অথবা ফোন থেকে এসএমএস করেও জানতে পারবেন।
আপনার আবেদনের সর্বশেষ অবস্থা জানতে মোবাইলের মধ্যমে এসএমএস করুন PCC S XXXXXXXXX লিখে এবং পাঠিয়ে দিন 26969 নম্বরে । (এখানে XXXXXXXXX আবেদনের রেফারেন্স নং উদাঃ 170002255)। ফিরতি এসএমএস এ পেয়ে যাবেন সর্বশেষ স্ট্যাটাস
-আল্লাহ সহজ করুক আপনাদের কাজগুলো।
জাঝাকাল্লাহু খাইরান।


📌 অনুবাদ, আবেদন ও যেকোন প্রয়োজনে যোগাযোগ করুন 📌
 Facebook ID   ||  Messenger || WhatsApp Number: +8801779-748813 (Text only) || WhatsApp Link || Email 
|| Facebook Group

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *